Contest #2 : Tell us about "A Freedom Fighter of Your Country.

in Steem Bangladesh2 months ago

" মুন্সী আবদুর রউফ"
একজন বাংলাদেশী যোদ্ধা

আসসালামু আলাইকুম আজকে আমি আমাদের বাংলাদেশী একজন মুক্তিযোদ্ধা সম্পর্কে কিছু কথা বলবো। তিনি হলেন বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আবদুর রউফ (বাংলা: মুন্সী আবদুর রউফ; ৮ ই মে ১৯৪৩ - ২০ এপ্রিল ১৯৭১) বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলসে ল্যান্স নায়ক ছিলেন। তিনি ১৯৬৩ সালের ৮ ই মে পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলসে তালিকাভুক্ত হন এবং মুক্তিযুদ্ধের সময় নিয়মিত পদাতিক ইউনিটের সাথে যুক্ত ছিলেন। ১৯৭১ সালের ২০ এপ্রিল পার্বত্য চট্টগ্রামের বুড়িঘাটে রাউফ মারা যান তার মেশিনগান দিয়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির পরে এবং তাদের পশ্চাদপসরণ করতে বাধ্য করে। রাঙ্গামাটি জেলার নানিয়ারচর উপজেলায় তাকে দাফন করা হয়।
মুন্সী আবদুর রউফ
বীরশ্রেষ্ঠ
আব্দুর রাউফ
ল্যান্স নায়ক, মুন্সী আবদুর রউফ বীরশ্রেষ্ঠ
স্থানীয় নাম
মুন্সী আবদুর রউফ

images.jpeg
source

জন্ম:-৮ মে ১৯৪৩
সালামতপুর গ্রাম, বোয়ালমারী থানা (বর্তমানে মধুখালী থানা), ফরিদপুর জেলা ঢাকা, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ রাজ।

মারা গেছে:-২০ এপ্রিল ১৯৭১ (বয়স ২৭)
বুড়িঘাট, নানিয়াচর, রাঙ্গামাটি।

দোষ:-বাংলাদেশী।

কাজের ব্যাপ্তি:-৮ মে ১৯৬৩ - ৮ এপ্রিল ১৯৭১

র‍্যাংক:-ল্যান্স নায়ক।

ইউনিট:-পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলস।

যুদ্ধ:-বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ।

পুরষ্কার:-বীরশ্রেষ্ঠ।

তিনি বীরশ্রেষ্ঠ পদে ভূষিত হয়েছিলেন, এটি বাংলাদেশের বীরত্বের সর্বোচ্চ স্বীকৃতি।

মুন্সী আবদুর রউফ ১৯৪৩ সালের ৮ ই মে ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী থানার অধীনে (বর্তমানে মধুখালী থানা) সালামতপুর গ্রামে (নতুন নাম রউফ নগর) জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা মুন্সী মেহেদী হোসেন স্থানীয় মসজিদে একজন "ইমাম" এবং তাঁর মা মুকিদুন্নেছা। তাঁর দুটি বোন ছিল, তাদের নাম ছিল জহুরা এবং হাজেরা।১৯৫৫ সালে বাবার মৃত্যুর পরে, রাউফকে অষ্টম শ্রেণিতে পড়াশোনা বন্ধ করতে হয়েছিল। ১৯৬৩ সালের ৮ ই মে তিনি পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলসে যোগ দিয়েছিলেন। চাকরি পেতে তাঁর বয়স তিন বছর বাড়াতে হয়েছিল। চুয়াডাঙ্গার ইপিআর শিবিরে প্রাথমিক প্রশিক্ষণের পরে, রাউফ উন্নত প্রশিক্ষণ গ্রহণের জন্য পশ্চিম পাকিস্তানে গিয়েছিলেন। তিনি ৬ মাস পর কুমিল্লায় নিযুক্ত হন।

ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট পাকিস্তানী সেনাবাহিনীকে রাঙ্গামাটি-মহালছড়ি নৌপথ ব্যবহার নিষিদ্ধ করতে চেয়েছিল। এভাবে তারা বুড়িঘাটে চেঙ্গি হ্রদের দু'টিতে শিবির স্থাপন করেছিল। রাউফ এই সংস্থায় একজন সৈনিক হিসাবে কর্মরত ছিলেন। রাঙ্গামাটি-মহালছড়ি নৌপথ ব্যবহার করতে বাধা দেওয়ার জন্য রেজিমেন্ট উভয় পক্ষেই একটি শিবির তৈরি করে।

রাঙ্গামাটির নানিয়ারচরের বুড়িঘাটে শহীদ ল্যান্স নায়েক মুন্সী আবদুর রউফ বীরশ্রোহের সমাধি
১৯৭১ সালের ৮ ই এপ্রিল, পাকিস্তানী সেনাবাহিনী স্পিড বোট এবং ২ টি লঞ্চ নিয়ে মুক্তিবাহিনীর প্রতিরক্ষামূলক অবস্থান আক্রমণ করে। তাদের মিশন ছিল মুক্তি বাহিনীকে রাঙ্গামাটি ও মহলছড়ির জলপথ থেকে দূরে সরিয়ে দেওয়া। পাকিস্তানি বাহিনী তাদের কাছে এসে প্রচুর গুলি চালিয়ে মুক্তিবাহিনীকে অসন্তুষ্ট করতে সক্ষম হয়। এরই মধ্যে পাকিস্তানিরা মুক্তিযোদ্ধাদের ঘিরে ফেলে এবং তাদের প্রায় ১০০
Screenshot_2021-06-12-06-52-47-263_com.android.chrome.jpg
জনকে আলাদা করতে সক্ষম হয়। রাউফ পুরো সংস্থার জন্য হুমকি বুঝতে পেরেছিল। সুতরাং, তিনি তার খন্দকের দিকে এগিয়ে গেলেন এবং অবিচ্ছিন্নভাবে তার স্বয়ংক্রিয় মেশিনগান দিয়ে শত্রুদের দিকে গুলি চালালেন। ফলস্বরূপ, পাকিস্তানিরা তাদের লঞ্চগুলি আবার নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায় এবং সেখান থেকে পুনরায় গুলি চালানো শুরু করে। হঠাৎ করেই একটি মর্টার সরাসরি রউফকে ধাক্কা দেয় এবং সঙ্গে সঙ্গে তাকে হত্যা করা হয়। রাউফের বীরত্বপূর্ণ প্রচেষ্টা তার সংস্থাটিকে বাঁচতে সহায়তা করেছিল কারণ সেদিন তার অভিনয়টি মুক্তিবাহিনীর প্রায় দেড়শ সৈন্যকে বাঁচিয়েছিল।